ভিটামিন ডি শরীরে যেসব কাজে লাগে।

Vitamin d in the body that work.

ভিটামিন ডি শরীরে যেসব কাজে লাগে, Vitamin d in the body that work, হাড়ের স্বাস্থ্য রক্ষায়, ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়, হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়, মাংসপেশিতে শক্তি বাড়ায়, অ্যাজমার ঝুঁকি কমায়, সাধারণ সর্দি-কাশির প্রবণতা কমায়, সুস্থ সন্তান জন্মদানে সাহায্য করে, বয়স্ক অবস্থায় মানসিক স্বাস্থ্য রক্ষায় সাহায্য করে, সুস্বাস্থ্যের জন্য ভিটামিন ডি জরুরি একটি পুষ্টি উপাদান বা ভিটামিন,
ভিটামিন ডি

হাড়ের স্বাস্থ্য রক্ষায়: হাড়ের সুস্থতায় ভিটামিন ডি-এর যথেষ্ট ভূমিকা রয়েছে। গবেষণায় দেখা গেছে, যাঁদের রক্তে পর্যাপ্ত ভিটামিন ডি নেই, তাঁদের হাড়ের ক্ষয় অনেক দ্রুত হয়। পর্যাপ্ত পরিমাণ ভিটামিন ডি শরীরে থাকলে তাঁদের হাড় ভাঙার আশঙ্কা অনেক কমে যায়। ভিটামিন ডি হাড়ের প্রয়োজনীয় মিনারেলস শোষণে সাহায্য করে। তাই হাড় সুগঠনে ভিটামিন ডি-এর তুলনা নেই।

ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়: গবেষণায় দেখা গেছে, ভিটামিন ডি টাইপ-ওয়ান ও টাইপ-টু উভয় প্রকার ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। অল্প বয়সেই যদি পর্যাপ্ত ভিটামিন ডি দেহে সরবরাহ করা যায়, তাহলে ইনসুলিন নির্ভর ডায়াবেটিসের আশঙ্কা প্রায় ২৯ ভাগ কমানো সম্ভব। ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্ট রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করে।

হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়: ভিটামিন ডি হৃৎপিণ্ডের
স্বাস্থ্য রক্ষা করে হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়। যাঁদের রক্তে ভিটামিন ডি পর্যাপ্ত মাত্রায় থাকে, তাঁরা অনেক শারীরিক ব্যায়াম ও পরিশ্রম করতে পারেন। এটি হৃদরোগের স্বাস্থ্য রক্ষায় সাহায্য করে। সাম্প্রতিক দুটি গবেষণায় দেখা গেছে, ভিটামিন ডি কোলেস্টেরল ও ব্লাড প্রেশারের ঝুঁকি অনেকখানি কমিয়ে দেয়। এ ছাড়া সঠিক মাত্রায় ভিটামিন ডি শরীরে থাকলে সেটি ক্যানসারের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

বিষণ্ণতা কমাতে জরুরি: গবেষণায় দেখা গেছে
দেহে ভিটামিন ডি-এর ঘাটতির সঙ্গে মানসিক বিষণ্ণতার সম্পর্ক রয়েছে। দেহে ভিটামিন ডি কম থাকলে সেটি বিষণ্ণতা সৃষ্টি করে। ভিটামিন ডি বিষণ্ণতার প্রবণতা এবং লক্ষণগুলো কমাতে বা প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।

মাংসপেশিতে শক্তি বাড়ায়: মাংসপেশির বৃদ্ধি ও শক্তি জোগাতে ভিটামিন ডি অনেক জরুরি। বিশেষ করে বয়স্কদের দেহে ভিটামিন ডি কম থাকলে তাঁদের মাংসপেশি অনেক দুর্বল হয়ে পড়ে। অল্প বয়সে ভিটামিন ডি দেহে সুনির্দিষ্ট মাত্রায় থাকলে মাংসপেশি শক্তিশালী হয়। এটি বয়স্ক অবস্থায়ও সুস্থ থাকতে সাহায্য করে।

এ ছাড়া আরো নানা ধরনের কাজে ভিটামিন
ডি সাহায্য করে।

যেমন:-
অ্যাজমার ঝুঁকি কমায়। সাধারণ সর্দি-কাশির প্রবণতা কমায়। অপারেশনের পর দ্রুত আরোগ্য লাভে সাহায্য করে। সুস্থ সন্তান জন্মদানে সাহায্য করে। বয়স্ক অবস্থায় মানসিক স্বাস্থ্য রক্ষায় সাহায্য করে। এ ছাড়া মেজাজ ভালো রাখতে ভিটামিন ডি জরুরি।

সুস্বাস্থ্যের জন্য ভিটামিন ডি জরুরি একটি পুষ্টি উপাদান বা ভিটামিন। সূর্যের সংস্পর্শে ও সঠিক খাদ্য গ্রহণের মাধ্যমে দেহে এর সঠিক মাত্রা বজায় রাখা খুব জরুরি। কোনোরকম লক্ষণ দেখা দিলে সবচেয়ে ভালো হয় চিকিৎসকের পরামর্শে রক্তে এর মাত্রা পরীক্ষা করে দেখলে ও চিকিৎসকের পরামর্শে প্রয়োজনীয় সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করলে। সেইসঙ্গে ভালো হয় ভিটামিন ডি যুক্ত তেল, মাছ, ডিমের কুসুম ও দুধ খেলে। এ ছাড়া প্রতিদিন সকাল ১০টার পর ও দুপুর ১টার মধ্যে কিছু সময়ের জন্য রোদে গেলে।

More...
Previous
Next Post »