পালিয়ে বিয়ে পর্ব ০৪ ~ WriterMosharef

পালিয়ে বিয়ে পর্ব ০৪

পালিয়ে বিয়ে পর্ব ০৪

অভ্র ইহিতা চলে যাওয়ার পর বাইক নিয়ে বেরিয়ে যায়। ইহিতা
বাসায় এসে ড্রেস খুলে টুকরা টুকরা করে কাটে। আর সেইগুলো
ছাদে নিয়ে উড়িয়ে দেয়। অভ্রকে মনে মনে অনেক বকা দিচ্ছে
ইহিতা। এরপর ইহিতা নিজের মত করে এসে খাওয়া দাওয়া শেষ
করে ল্যাপটপ নিয়ে বসে। এর মধ্যে ইহিতার ফোন বাজলো। ফোন
রিসিভ করার সাথে সাথে অপর পাশ থেকে একটা ছেলে বলল
-কাজটা ভাল করলেনা ইহিতা। এর মাশুল তোমায় গুনতে হবে। (এই
বলে ছেলেটা ফোন কেটে দিল)
ইহিতা ভ্যাবাচেকা খেয়ে গেল। কে ফোন করলো আর কেনই বা
এসব বলল? ইহিতা আবার কল ব্যাক করে দেখলো কিন্তু ফোন বন্ধ।
ইহিতা এসব পাত্তা না দিয়ে আবার নিজের কাজে মনোযোগ দিল।
ইহিতার বাবা বাসায় আসার পর একসাথে গল্প করে ডিনার সেরে
ইহিতা শুয়ে পরলো। ইহিতা ভাবতেও পারছেনা আগামীকাল ওর
জন্য কি অপেক্ষা করছে!! ইহিতা সকালে ঘুম থেকে উঠে শর্ট ড্রেস
পরে ভার্সিটি তে যাবে বলে গাড়ি বের করলো। অর্ধেক রাস্তা
যাওয়ার পর ইহিতা খুব জোরে গাড়ি ব্রেক করে আর হোল্ডিং এর
সাথে লেগে ইহিতার মাথা কেটে যায়। গাড়ি ব্রেক করার কারণ
হলো সামনে একটা কার দাঁড় করানো। ইহিতা কপালে টিস্যু ধরে
বেরিয়ে আসে। গাড়িটার সামনে যাওয়ার পরেই ইহিতাকে জোর
করে সেই কারে বসানো হয়। আর একজনকে ফোন করে বলে ইহিতার
গাড়ি ইহিতার বাসায় দিয়ে আসতে। ইহিতা গাড়িতে উঠে অভ্রকে
দেখে চমকে যায় আর প্রচন্ড রেগে যায়।
-এই ছোটলোকের বাচ্চা তুই আমায় কেন এইভাবে নিয়ে আসলি?
কোথায় নিয়ে যাচ্ছিস আমাকে? (ইহিতা চিৎকার করে)
-একদম কথা কম বলবে। নয়ত মুখে স্কচটেপ মেরে দিব।(অভ্র)
-গাড়ি থামা। I say stop the car. (চিৎকার করে ইহিতা)
এরপর অভ্র আর কোনো কথা না বলে আরো জোরে গাড়ি চালাতে
থাকে। কিন্তু ইহিতা অনর্গল চেঁচিয়েই যাচ্ছে। এক পর্যায়ে ইহিতা
গাড়িতে থাকা বটল ছুঁড়ে মারে বাইরে। এতে জানালার কাঁচ
ভেঙ্গে যায়। কিন্তু অভ্র তবুও থামলো না।
একটা বাংলোর সামনে গাড়ি পার্ক করলো অভ্র। ইহিতাকে গাড়ি
থেকে জোর করে নামালো। কিন্তু ইহিতা নামবে না। এরপর অভ্র
ইহিতাকে কোলে করেই ভেতরে ঢুকলো। ইহিতা অভ্রর শার্ট ছিঁড়ে
ফেলেছে জিদ্দে। কিন্তু অভ্র কিছুই করছেনা। ড্রয়িংরুম এ নিয়ে
অভ্র ইহিতাকে বসালো। এরপর ইহিতার হাতে একটা ল্যাহেঙ্গা
দিয়ে বলল
-Quickly যাও আর এটা পরে আসো। Just go fast. উকিল সাহেব চলে
আসবেন এখন। (অভ্র)
-উকিল আসবেন মানে? আর তুই এভাবে আমায় এইটা পরতে বলছিস
কেন?(চিৎকার করে ইহিতা)
-আজ আমাদের মেরিজ রেজিস্ট্রি হবে। (অভ্র শান্ত গলায় বলল
ইহিতাকে)
-What??? এই জানোয়ার তোর সাহস হয় কি করে এসব বলার? ইহিতা
চৌধুরীকে বিয়ে করবে তোর মত ছোটলোক? My foot. Just let me go.
(ইহিতা ভাংচুর করতে করতে)
-কে ছোটলোক আর কে বড়লোক সেইটা আজ ই প্রমাণ হবে। বেশি
কথা না বলে এইটা পরে আসো নয়ত আমিই বাধ্য হব পরিয়ে দিতে।
-তুই আমায় টাচ করে দেখ শুধু। আমার বাবা যদি জানে তার মেয়েকে
তুই এইভাবে তুলে এনে বিয়ে করছিস তোকে জিন্দা কবর দেবে।
ভালোয় ভালোয় আমায় ছেড়ে দে। (ইহিতা)
-এরপর অভ্র নিজেই ইহিতাকে জোর করে ল্যাহেঙ্গা পরিয়ে দিল
চোখ বন্ধ রেখে। অভ্র জানে ইহিতা পরবেনা তাই নিজেই পরিয়ে
দিল। ইহিতা যা মেকাপ করা ছিল তাতে চলবে। এরপর অভ্র
উকিলকে ভেতরে আসতে বললেন। অভ্র রেজিস্ট্রি পেপারে সাইন
করে ইহিতাকে বলল সাইন করতে কিন্তু ইহিতা কলম ছুঁড়ে মারলো
আর পেপার ছিঁড়ে ফেলল। তখন অভ্র বলল
-জানি তুমি এইটা করবে তাই ২৫০ কপি রেজিস্ট্রি পেপার
বানিয়েছি আমি। কয়টা ছিঁড়তে পারো দেখি। সাইন তো তোমায়
করতেই হবে ইহিতা চৌধুরী।
-আমি সাইন করব না না । তোর মতো লোফারকে কোনোদিন আমি
বিয়ে করব না। দরকার হলে কোনোদিন বিয়ে ই করব না।
-ইহিতা সিনক্রিয়েট করো না। ভালোয় ভালোয় সাইন করে দাও
তাতে তোমারই মঙ্গল। (অভ্র)
-মঙ্গল মাই ফুট। (ফ্লাওয়ার ভাস ভেঙ্গে)
অভ্র প্রচন্ড ক্ষেপে যায় আর ইহিতার গালে জোরে একটা থাপ্পর
মারে। এরপর ইহিতার হাত ধরে পেপারে সাইন করায়। সাইন করানো
শেষ হলে উকিলকে চলে যেতে বলে অভ্র। উকিল চলে যাওয়ার পর
অভ্র ইহিতার ঘাড় ধরে ইহিতার গালে আর কপালে চুমু দেয়।
-Sorry আমি তোমায় মারতে চাইনি কিন্তু তোমার জেদের জন্যই তুমি
মার খেলে। বাসায় চলো এখন।(ইহিতার হাত ধরে)
-ইহিতা নড়ছেনা দেখে অভ্র ইহিতাকে কোলে নিয়ে গাড়িতে
বসায়। এরপর অভ্র ড্রাইভ করে নিজের বাসায় যায়। বাসার সামনে
এসে অভ্র ইহিতাকে বলে নামতে। এরপর ইহিতা নেমে যায় আর
অনেক অবাক হয়। এইটা তো মির্জা প্যালেস! এখানে নিয়ে আসলো
কেন ছোট লোকটা আমায়?? এরপর অভ্র ইহিতাকে নিয়ে ভেতরে
যায় আর সবাইকে ডাকে।
-বউমনি? বউমনি? আম্মু?
-কি হয়েছে দেবরজি চেচাচ্ছেন কে... (তিন্নি কথা বলতে গিয়ে
থেমে যায় দুইজনকে বিয়ের সাজে দেখে)
-কি হয়েছে ইশান (সবাই অভ্রকে ইশান ডাকে) চেচাচ্ছিস কেন? এই
মেয়ে কে? (অভ্রর আম্মু)
-আম্মু আমি বলছি। তোমার ছেলের আর বলতে হবে না! (তিন্নি)
-কি হয়েছে বউমা? (তিন্নিকে উদ্দেশ্য করে অভ্রর আম্মু)
Previous
Next Post »