মিষ্টি বউয়ের ভালবাসার গল্প ~ WriterMosharef

মিষ্টি বউয়ের ভালবাসার গল্প

মিষ্টি বউয়ের ভালবাসার গল্প

এই যে মিস্টার শুনেন??? জ্বী, মহারাণী বলেন আজ রাতে ঘুমাবো না,,,, সারা রাত ঐ বেলকনিতে বসে বসে গল্প করবো। পাগলে বলে কি বালিশটা এদিকে দাও। বললাম না,, আজ ঘুমাবো না। পাগলামু করো নাতো,, বালিশটা এদিকে দাও। দিবো না। ( অভিমান করে ) আমি দিতে বলছি না??? তুমি বললেই সব কিছু করতে হবে ?? আমি তোমার স্বামী না,,,, আমিও তো তোমার বউ। আমি কি কখনো বলেছি,, তুমি আমার বউ না। 
 তুমি তো আমার একটা কথাও শুনো না…?? কে বললো আমি তোমার কথা শুনি না…?? তাহলে ঘুমাতে চাও, ক্যানো ??? সারা দিন কাজ করে শরীরটা অনেক ক্লান্ত হয়ে আছে তো এই ধরো তোমার বালিশ,,, তুমি নাঁক ডেকে ঘুমাও। রাগের সুরে বলে বেলকনিতে গিয়ে দাড়িয়ে রইলো। দুর এখন কি আর ঘুম আসবে চোখে । বালিশটা ছুড়ে দিলাম,তারপর বেলকনিতে চলে গেলাম। পাগলীটা একটু রেগে আছে। কিছু না বলে পিছন থেকে জড়িয়ে ধরলাম। আমাকে ছাড়ো? ( রাগ দেখিয়ে ) ছাড়বো না। আমি তোমার কে,, আমাকে জড়িয়ে ধরো?? ( অভিমান করে ) তুমি একটা পেত্নী,, কি আমি পেত্নী !!!??? শয়তান পেত্নী। ছাড়ো আমাকে,,, না ছাড়লে কিন্তু খবর আছে তোমার। ( রাগ দেখিয়ে ) না ছাড়লে কি করবা শুনি..?? কি করবো তা জানি না,,, কিন্ত কিছু একটা করবো তা জানি। 
 তুমি যে কি করবা তা আমি জানি? ভালো হইছে,, আমারে ছাড়ো তাড়াতাড়ি।( হালকা রাগ করে ) ছাড়বো না, এভাবে সারা রাত জড়িয়ে ধরে রাখবো। উহুম,, বললেই হলো। এতো শক্ত করে কেউ কাউকে ধরে ,, আমার ব্যাথা লাগছে তো। বেশি ব্যাথা পেলো ঔষধ কিনে দিবো, তবুও ছাড়বো না। আমি ঔষধ খাই না। ( হেসে বললো ) তাহলে তো আমার অনেক টাকা বেঁচে যাবে। তুমি একটা কিপ্টা। তুমি তো সেই কিপ্টার বউ। আমার জামাই এতো কিপ্টা না,, বুঝছেন। তাহলে আমি কে??? তা কি আমি জানি?? উহুমমম,,, ওনি কিচ্ছু জানে না,,, তোমার মতো পাজির বউ হতে যাবো কেনো,,, দেশে কি ছেলে অভাব পরছে নাকি। এখনো বিয়ে করতে কত ছেলে ঘুরে আমার পিছে পিছে। 
 তাই যাও না,, তাদেরকে গিয়ে বিয়ে করো??? আমাকে এভাবে ধরে রাখলে যাবো কেমনে??? যাও ছেড়ে দিলাম। (রাগ করে) আমি কি সত্যি সত্যি ছাড়তে কইছি নাকি। যাও, দাড়িয়ে রইলা ক্যানো। ( অভিমান করে ) আমি তো তোমার সাথে দুষ্টমী করছিলাম। বেলকনি থেকে চলে এলাম রোমে। বালিশটা উঠিয়ে বিছানায় শুয়ে পরলাম। কিছু ক্ষন পর কান্নার শব্দ পেলাম। কে আর কান্না করবে রাতের বেলায়। বেলকনিতে গিয়ে দেখি, যা ভেবে ছিলাম তাই। ফুঁফিয়ে ফুঁফিয়ে কান্না করছে । চোখ দিয়ে অজরে পানি পড়ছে। 
 চোখের পানি মুছে দিয়ে বুকে জড়িয়ে নিলাম। এই পাগল এভাবে কেউ কাঁদে। কান্না করতেই অাছে। বললাম তো রাগ করিনি,, এবার একটু হাঁসো। এভাবে কেউ কান্না করে। তাহলে তুমি কিছু না বলে চলে গেলে কেনো??? (কাঁন্না করতে করতে) তুমি জানো না,,, তোমার মুখে অন্য কোন ছেলের নাম সহ্য করতে পারি না। ভুল হয়ে গেছে মাফ করে দাও। (বুকের উপর মাথা রেখে ) চল আমরা আকাশের তাঁরা গুনি। মাফ করছো তো??? হুমমমম তাহলে কপালে একটা চুম দাও এই যে দিলাম। ( চুম দিয়ে ) আগের মতো আবার শক্ত করে জড়িয়ে ধরো। উহুমমম,,, ধরবো না। বুঝছি তুমি এখনো আমার উপর রেগে আছো। (তুমি সব সময় আমার উপর রেগে থাকো,,, আস্তে আস্তে বলে) মুখটা মলিন করে,, আকাশের দিকে তাকিয়ে রইলো। আমি আবার আগের মতো শক্ত করে জড়িয়ে ধরে,,, একের পর এক মুখে চুম দিতে লাগলাম। এই পাজি,, কি করো এসব। যাহ দুষ্ট, লজ্জা সরম কিচ্ছু নাই।
Previous
Next Post »