নিখোঁজ ~ WriterMosharef

নিখোঁজ

নিখোঁজ, নিখোঁজ বিজ্ঞপ্তি, nikhoj, nikhoj valobasa,

সারা দিন FB চালার পর রাতে আর ফোন চার্জ দেয়া হয় নাই। সকালে উঠে দেখি ৮% চার্জ। আমি মনে মনে বললাম, এটা কোনো ব্যাপারই না।

বাথরুমে ফোন চার্জ দেয়ার জন্যে প্লাগ সিস্টেম করেছি। বাথরুমে গিয়ে চার্জ দেয়া যাবে আর বাথরুম করা যাবে।

বাথরুমে ঢুকে কমোডে বসার পর মনে হলো, আমার বাথরুম করতে ইচ্ছা হচ্ছে না। এরপর কমোডে বসেই ফোন চার্জে দিয়ে মোবাইল টিপতে শুরু করলাম।

ফোনের গ্যালারিতে ঢুকলাম।গ্যালারিতে ঢুকে দেখলাম, দ্যা ইম্মোর্টাল নামে একটা মুভি আছে। আড়াই ঘন্টার একটা মুভি।

অনেকদিন ধরেই পরে আছে গ্যালারিতে। দেখা হয়নি।
বাথরুমের কমোডে বসেই মুভি দেখা শুরু করলাম।

মুভি শেষের দিক আর একটু বাকী আছে। মানে দুই ঘন্টা পেরিয়ে গেছে। মুভি পস করতেই মসজিদের মাইক থেকে হারানো বিজ্ঞপ্তির সাউন্ড আসছে।

মাইকে বলা হচ্ছে, একটি হারানো বিজ্ঞপ্তি, একটি হারানো বিজ্ঞপ্তি। যাত্রাবাড়ি শনির আখড়া নিবাসী এডলফ রাসেল নামে একটি ছেলে আজ সকাল সাতটার সময় তার নিজ বাসা থেকে হারিয়ে গেছে।

তার পরনে ছিলো একটি কালো প্যান্ট এবং নীল
রঙের শার্ট। পায়ে ছিলো লটোর একজোড়া স্যান্ডেল।
আমি অবাক হয় মাইকিং শুনলাম।

কিছুক্ষণ পরে বাথরুমের ভ্যান্টেলিটার দিয়ে দেখতে পেলাম শুনতে বাড়ির সামনের এক রিকশাওয়ালা মাইক নিয়ে দাড়িয়ে আছে।

তাতেও কিছুক্ষণ পর মাইকিং শুরু হলো। একটি হারানো বিজ্ঞপ্তি।

এসব শুনে আমি মনে মনে বললাম, আমি কি করে বাসা থেকে হারাইলাম? আমি তো নিজের বাসার বাথরুমেই আছি।

বাথরুমে আর দেরী না করে বের হয়ে গেলাম। এসে দেখি বাবাও অফিস থেকে চলে এসেছে। তাকি অস্থির দেখাচ্ছে।

আমি মার কাছে গিয়ে বললাম, কি হয়েছে মা? তোমাদের এমদি অস্থির দেখাচ্ছে কেনো? আর মসজিদে আমার নামে হারানো বিজ্ঞপ্তিই বা দিচ্ছে কেন?

মা আমাকে বললো, বল হারামজাদা কোথায় গিয়েছিলি তুই? সকাল থেকে তোকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছেনা কেন?

আমি বললাম, কোথায় আর যাবো? আমি তো বাথরুমেই ছিলাম। একটা মুভি দেখছিলাম। মুভি দেখতে দেখতে দেরি হয়ে গেছে।

মা বললো ঘরটির দিকে তাকিয়ে দেখেসিছ? কয়টা বাজে?

আমি ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখলাম দুপুর তিনটা বাজে। আমি মাকে বললাম, আমাকে ফোন দিলেই তো পারতে।

মা বললো, ফোন দিই নি মনে করসোছ? তোর ফোন বন্ধ। আর তুই মুভি দেখলে ফোন বন্ধ থাকবে কেন? জবাব দে।

আমি মায়ের ফোন হাতে নিয়ে দেখলাম আমাকে ১০৬ বার কল দেয়া হয়েছে।

এইবার আমি আমার ফোনের দিকে তাকিয়ে দেখি ফোন এয়ারপ্লেন মোড করা।

এরপর মাকে অনেক বুঝিয়ে বাড়ির পরিস্থিতি অনেক স্বাভাবিক।

কিন্তু নিজে নিজে অবাক হচ্ছি, ঘড়িতে তিনটা বাজলো কিভাবে?

আর মোবাইল এয়ারপ্লেন মোড করলাম কখন?
তবে মনে মনে এখন সাদাত হোসাইন এর লেখা একটা একটা লাইন বাজছে, আমাকে বাথরুমে হারাতে দিলে
নিখোঁজ বিজ্ঞপ্তি তে ছেয়ে যাবে পুরো যাত্রাবাড়ী।
Previous
Next Post »